You are here: Home » আদালত » নিরপেক্ষভাবে বিচারের জন্য অনেক দায়িত্ব আপনাদের। রাজনীতি করতে হলে দায়িত্ব ছেড়ে দেন- প্রধান বিচারপতি

নিরপেক্ষভাবে বিচারের জন্য অনেক দায়িত্ব আপনাদের। রাজনীতি করতে হলে দায়িত্ব ছেড়ে দেন- প্রধান বিচারপতি 

1

২৫ আগষ্ট ২০১৭ শুক্রবার
প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহা আদালতে দেওয়া তাঁর বক্তব্য ‘মিস কোট’ (ভুলভাবে উপস্থাপন) না করার জন্য গণমাধ্যমের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

আজ বৃহস্পতিবার বিকেলে সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সফিউর রহমান মিলনায়তনে মৌলভীবাজারের আইনজীবী শান্তি পদ ঘোষের লেখা ‘জুডিশিয়াল ইন্টারপ্রিটেশন’ গ্রন্থের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে সাংবাদিকদের প্রতি এ আহ্বান জানান প্রধান বিচারপতি।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত গণমাধ্যমের উদ্দেশে ওই আবেদন জানিয়ে প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘আমাকে নিয়ে অনেক বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়, আমি কোর্টে যা বলি, কিছু বিকৃত করা হয়। এতে গিয়ে একটু বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হয়। এটা যাতে আমাকে না পড়তে হয়। কারণ, আমার পক্ষে সংবাদ সম্মেলন করে কোনো কিছু বলা সম্ভব নয়। বিচারক হিসেবে মামলা শোনার সময় আমি কোনো আইনজীবীকে একটা প্রশ্ন করতেই পারি, এটা আমার স্বাধীনতা। প্রশ্নটা কী কারণে, কোন উদ্দেশ্য, না বুঝে এটা করাটা অনেক সময় ভুল-ভ্রান্তি হতে পারে। এটা একটু খেয়াল করবেন আপনারা।’

বিচারপতিদের নিরপেক্ষভাবে বিচার করার আহ্বান জানিয়ে প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘আমি বলতে চাচ্ছি, আমরা বিচারকেরা হয়তো ছাত্রজীবনে বা পেশাজীবনে প্রত্যেকের রাজনীতির চিন্তাচেতনা থাকতে পারে। আপিল বিভাগ, হাইকোর্ট ও নিম্ন আদালতের বিচারকদের বলব, আপনারা আপনাদের অতীত ভুলে যান। নিরপেক্ষভাবে বিচারের জন্য অনেক দায়িত্ব আপনাদের। যদি রাজনীতি করতে হয়, তাহলে আপনারা ছেড়ে চলে আসেন। আর যদি বিচারক হই, তাহলে নিরপেক্ষভাবে করবেন। মানুষের অধিকার যাতে রক্ষা করতে পারেন।’

প্রধান বিচারপতি আইনজীবীদের উদ্দেশে বলেন, ‘শুধু বিচারকদের বলব না, বিজ্ঞ আইনজীবীদেরও বলব, আপনাদেরও এই সমাজকে যথেষ্ট কিছু দেওয়ার আছে। আপনারা একটা জায়গায়, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠায় আপনারা এক প্ল্যাটফর্মে আসুন। আপনাদের সহযোগিতা ছাড়া কোনো মামলা ভালোভাবে নিষ্পত্তি করতে পারি না। ইদানীং আপনাদের পেশাদারি একটু কম দেখা যাচ্ছে।’

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হত্যা মামলার কথা উল্লেখ করে প্রধান বিচারপতি বলেন, নথি পর্যালোচনায় দেখা গেছে অনেক ত্রুটি ছিল এ মামলায়। যেমন তদন্তে, সে রকম প্রসিকিউশন ত্রুটি ছিল। এ বিষয়ে ভবিষ্যতে কিছু লেখার চিন্তাভাবনার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, শুধু এই মামলা নয়, জেলহত্যা মামলাতেও অনেক ত্রুটি ও গাফিলতি ছিল। তিনি মামলার বিচারকাজের কথা তুলে ধরে বলেন, এটা ফৌজদারি ষড়যন্ত্র ছিল। ফৌজদারি ষড়যন্ত্র যদি হয়, এটা হয়েছিল সেনানিবাস থেকে।

আইনজীবী সুব্রত চৌধুরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরও বক্তৃতা করেন বিশিষ্ট আইনজীবী ড. কামাল হোসেন, সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি জয়নুল আবেদীন, গ্রন্থের লেখক শান্তি পদ ঘোষ প্রমুখ। সূত্র প্রথম আলো

Add a Comment