You are here: Home » সম্পাদকীয় » ময়নামতি নয় কুমিল্লা নামে বিভাগ হোক

ময়নামতি নয় কুমিল্লা নামে বিভাগ হোক 

জনমত.কম।। ০২ মার্চ ২০১৭

কুমিল্লা জেলার নামে বিভাগ ঘোষণার দাবিতে ফুলে ফুঁসে উঠছে কুমিল্লা জেলার সর্বস্তরের জনগণ। ইতিহাস ঐতিহ্যম-িত জেলা কুমিল্লা। দেশের পুরাতন জেলার মধ্যে কুমিল্লা একটি। এ জেলায় জন্ম হয়েছে বহু জ্ঞানীগুণি ব্যক্তির। কুমিল্লাকে বিভাগ ঘোষণার দাবি কুমিল্লাবাসীর দীর্ঘদিনের প্রাণের দাবি। দেরি করে হলে ও প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা কুমিল্লাকে বিভাগ ঘোষণা দেয়ার জন্য কুমিল্লাবাসীর পক্ষ হতে প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে প্রাণঢালা অভিনন্দন জানাই। দেশে পূর্বে যে জেলাগুলোকে বিভাগ ঘোষণা করা হয়েছে, সেগুলো জেলার নামে ঘোষণা করা হয়েছে। কিন্তু কুমিল্লা বিভাগকে কেন কুমিল্লার নামে বিভাগ ঘোষণা করা হবে না, তা কুমিল্লার সর্বস্তরের জনগণ জানতে চায়? কুমিল্লা জেলার একটি অংশ ময়নামতির নামে বিভাগের নাম করণের কারণে কুমিল্লা জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলের সকল পেশাশ্রেণির মানুষ ক্ষোভে ফুঁসে উঠছে। যে দিন কুমিল্লা জেলার কৃতিসন্তান বর্তমান সরকারের পরিকল্পনা মন্ত্রী আ.হ.ম মোস্তফা কামাল বলেছেন কুমিল্লা বিভাগের নাম হবে ময়নামতি বিভাগ। সে দিন হতে কুমিল্লা জেলার সর্বস্তরের জনগণ কুমিল্লা বিভাগের ময়নামতি নাম পরিবর্তন করে কুমিল্লা বিভাগ নামকরণের দাবিতে জোরালো প্রতিবাদ করে আসছে। এরই ধারাবাহিকতায় প্রতিদিন জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলের সকল শ্রেণির মানুষ কুমিল্লা বিভাগ নাম করণের দাবিতে প্রতিদিন সভা-সমাবেশ, মিছিল-মিটিং ও মানববন্ধন করে এর প্রতিবাদ করে আসছে। গত ১৮ ফেব্রুয়ারি ময়নামতি বিভাগ নাম বাতিল করে কুমিল্লা বিভাগ করণের দাবিতে কুমিল্লার বিশিষ্ট সাংবাদিক জনাব মানুনুর রশিদ সরকার ও সাংবাদিক রণবীর ঘোষ কিংকর-এর নেতৃত্বে জেলার চান্দিনা উপজেলা সদর ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে হাজার হাজার জনগণের উপস্থিতিতে এক বিশাল মানবন্ধন করে। উক্ত মানববন্ধনে উপস্থিত লোকজন ময়নামতি বিভাগ নাম বাতিল করে কুমিল্লা বিভাগ নাম করণের জোর দাবি জানান।

এমনকি ময়নামতি বিভাগ নাম বাতিল করা না হলে মানববন্ধনে উপস্থিত লোকজন ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক অচল করে দেয়ার হুমকি দেন। এভাবে প্রতিদিন জেলার সব জায়গায় সভা-সমাবেশ, মানববন্ধব অবিরত চলছে। দিন দিন কুমিল্লা বিভাগ নামকরণের দাবিতে আন্দোলন প্রকট আকার ধারণ করছে। হয়তো একসময় তা আরও ভয়াবহ আকার ধারণ করতে পারে। কুমিল্লা জেলাবাসীর একটাই কথা কেন কুমিল্লার নামে বিভাগ করা হবে না? কুমিল্লা জেলার একজন বা দুইজন কু-সন্তানের জন্য তো সমস্ত কুমিল্লাবাসীর ওপর এর দায় পড়তে পারে না। কুমিল্লার এই দুই কু-সন্তানের একজনের বাড়ি চান্দিনা উপজেলার ছয়ঘরিয়া গ্রামে। আর একজনের বাড়ি দাউদকান্দির দশপাড়া গ্রামে। এই দুই কু-সন্তান ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট বাংলার মহান স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে স্বপরিবারে হত্যাকা-ে সরাসরি অংশ গ্রহণ করে জাতির পিতাকে হত্যা করে। তৎকালিন সময়ে দাউদকান্দির দশপাড়া গ্রামের কু-সন্তান খন্দকার মোস্তাক ছিলেন রাষ্ট্রপতি আর চান্দিনার ছয়ঘরিয়া গ্রামের কু-সন্তান খন্দকার আরদুর রশিদ ছিলেন তৎসময়ে সেনাবাহিনীর লে:কর্ণেল। ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় এসে বঙ্গবন্ধু হত্যা মামলার আসামিদের বিচার করে তাদের মৃত্যুদ- প্রদান করেন। সে আমলে মৃত্যুদ- কার্যকর করে যেতে পারেননি প্রধানমন্ত্রী। ২০০৮ সালে আওয়ামী লীগ সরকার আবার ক্ষমতায় এসে তাদের ফাঁসি কার্যকর করেন। যারা জেলখানায় বন্দি ছিলেন। মৃত্যুদ- প্রাপ্ত আসামি লে. কর্ণেল ফারুক দেশের বাহিরে আত্মগোপনে থাকার কারণে তার মৃত্যুদ- কার্যকর করা যায়নি। খন্দকার মোস্তাক বিচার কাজ আরম্ভ হওয়ার আগেই মারা যান। যাদেরকে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব খুব ঘনিষ্ট বলে জানতেন।

সেই বিশ্বাস ঘাতকেরা আজকের আমাদের প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার পুরো পরিবারকে হত্যা করে। এই রাগে, ক্ষোভে না অন্য কোন কারণে কুমিল্লা জেলাকে ?কুমিল্লা বিভাগ নাম না দিয়ে ময়নামতি বিভাগ নাম দিতে চান তা কুমিল্লাবাসীর বোধগম্য নয়। যদি তাই হয়, তাহলে কুমিল্লাবাসীর বক্তব্য হলো যারা বঙ্গবন্ধুর হত্যাকা-ে জড়িত ছিল দেশীয় আইনে তাদের বিচার হয়েছে। এ ক্ষেত্রে কুমিল্লার লোকজন সহযোগিতা করছে। খুনি রশিদ কুমিল্লার চান্দিনা আসনে ১৯৯৬ সালে সংসদ নির্বাচন করেছিল। তখন চান্দিনাবাসী তাকে শক্তহাতে প্রতিরোধ করেছিল। স্বতস্ফুর্তভাবে চান্দিনাবাসী তখন আওয়ামী লীগ প্রার্থী আলহাজ অধ্যাপক আলী আশ্রাফকে বিপুল ভোটে করে বিজয়ী করেছিল। এ ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রীর আর কোনো ক্ষোভ থাকার কথা নয়। এছাড়াও কুমিল্লা জেলার লোকজন প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনাকে অত্যধিক ভালোবাসে। যার কারণে গত সংসদ নির্বাচনে কুমিল্লার লোকজন আওয়ামী লীগ প্রার্থীদেরকে বিপুল পরিমাণ ভোট দিয়ে বিজয়ী করে দেয়। তাই কুমিল্লাবাসীর দাবি প্রধানমন্ত্রী কুমিল্লা বিভাগকে কুমিল্লা বিভাগ নামে ঘোষণা করুন। কুমিল্লা জেলা সারা বাংলাদেশে যেমন একটি পরিচিত জেলা তেমনি বিশ্বের অনেক জায়গায়ও তার পরিচিতি রয়েছে। আমরা বলবো না যে ময়নামতির কোনো পরিচিতি নাই।

ময়নামতিরও পরিচিতি আছে। তারপরও বলবো যেহেতু কুমিল্লা জেলা। সেহেতু জেলার নামে বিভাগ হলে ভালো হবে। এ ছাড়া দেশের জাতীয় উন্নয়নে কুমিল্লার লোকজন উল্লেখযোগ্য অবদান রাখে। তাছাড়া দেশের প্রসিদ্ধ জেলাগুলির মধ্যে কুমিল্লা একটি উল্লেখযোগ্য জেলা। দেশের যতগুলি উল্লেখযোগ্য প্রতিষ্ঠান রয়েছে তার সবকয়টির একটি করে কুমিল্লাতে অবস্থিত। কুমিল্লাতে রয়েছে মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়, সার্ভে কলেজ, শিক্ষাবোর্ড, বাংলাদেশ পল্লী উন্নয়ন একাডেমি (বার্ড), পলিটেকনিক্যাল কলেজ, ক্যাডেট কলেজসহ আরও অন্যান্য প্রতিষ্ঠান। পরিশেষে বলতে চাই, প্রধানমন্ত্রী বিষয়টি একবার বিবেচনা করে দেখুন, একজন বা দুইজন কু-সন্তানের জন্য সমস্ত কুমিল্লাবাসী কেন কুমিল্লা বিভাগ নাম থেকে বঞ্চিত হবে? বিষয়টির প্রতি প্রধানমন্ত্রীর সু-নজর দেয়া প্রয়োজন বলে কুমিল্লার সচেতন মহল মনে করেন। মো.ওসমান গনি : সাংবাদিক ও কলামিস্ট, দৈনিক জনতা

Add a Comment